জাহান্নামীদের একটি বিতর্ক

সূরা গাফিরে আল্লাহ বিচার দিবসের একটি চিত্র তুলে ধরেন। এটা সাধারণ কোন চিত্র নয়। মনোযোগ দিয়ে শুনুন। وَإِذْ يَتَحَاجُّونَ فِي النَّارِ فَيَقُولُ الضُّعَفَاءُ لِلَّذِينَ اسْتَكْبَرُوا إِنَّا كُنَّا لَكُمْ تَبَعًا فَهَلْ أَنتُم مُّغْنُونَ عَنَّا نَصِيبًا مِّنَ النَّارِ – قَالَ الَّذِينَ اسْتَكْبَرُوا إِنَّا كُلٌّ فِيهَا إِنَّ اللَّهَ قَدْ حَكَمَ بَيْنَ الْعِبَادِ – মনোযোগ দিয়ে এটা শুনুন, আপনাদের যা আমি বোঝাতে চাচ্ছি। জাহান্নামে যখন তারা একে অপরের সাথে বিতর্কে লিপ্ত হবে… জাহান্নামে এমনসব মানুষ থাকবে (আল্লাহ আমাদের তাদের অন্তর্ভুক্ত না করুন) যারা একে অপরের সাথে বিতর্কে লিপ্ত হবে। কে কার সাথে বিতর্ক করবে? আল্লাহ বলেন – দুর্বলরা পৃথিবীতে যাদের ক্ষমতা ছিল তাদের সাথে বিতর্কে লিপ্ত হবে। দুর্বল, নির্যাতিত, যারা মুখ খুলতে ভয় পেত, যারা অন্যায়ের বিরুদ্ধে কথা বলতে পারতো, কিন্তু তারা যদি মুখ খুলতো তাহলে তাদেরকে বিপদে পড়তে হতো, যারা মুখ বুঝে সব মেনে নিয়েছিল…। তারাই এখন ক্ষমতাশালীদের সাথে বিতর্কে লিপ্ত হলো।

খেয়াল করে দেখুন, উভয় দলই কিন্তু আগুনে। তো, দুর্বলরা বলবে, আমরা তোমাদের অনুসরণ করতাম। إِنَّا كُنَّا لَكُمْ تَبَعًا আমরা তোমাদের অনুসারী ছিলাম। অতএব তোমরা কি আমাদের থেকে আগুনের কিয়দংশ বহন করবে’? তখন অহংকারীরা বলবে, আমরা সবাই তো জাহান্নামে আছি। আল্লাহ তাঁর বান্দাদের ফয়সালা করে দিয়েছেন। এমনকি সেই কুফফাররাই এখন বলবে – প্রভু ইতিমধ্যে সিদ্ধান্ত দিয়েছেন। إِنَّ اللَّهَ قَدْ حَكَمَ بَيْنَ الْعِبَادِ কোন সন্দেহ নেই আল্লাহ তাঁর বান্দাদের মাঝে ফয়সালা করে দিয়েছেন।

এ কথা বলার মাধ্যমে এই লোকগুলো আসলে কী বলতে চাইছে? আপনারা হয়তো মনে মনে ভাবছেন, দুর্বলরা কেন জাহান্নামে যাবে? তারাতো পরিস্থিতির শিকার। হ্যাঁ, তারা পরিস্থিতির শিকার। কিন্তু জানেন? তাদের অপরাধ কী? সত্য না বলা। আপনার হাতে কোন অস্ত্র নেই, আপনি দুর্বল। আপনার কোন অস্ত্র নেই, সামরিক শক্তি নেই, সামাজিক সম্পদ নেই। কিন্তু একটা সম্পদ আপনার ছিল আর তাহলো আপনার জিহ্বা যা দিয়ে আপনি সত্য বলতে পারতেন। শুধু এই একটা কাজ, শুধু এই একটা কাজ।

তাই আপনি যদি এই সম্পদের ব্যবহার না করেন, তাহলে আপনিও তাদের মতই একজন ক্রিমিনাল। কারণ একজন বিশ্বাসী সত্যের জন্য দাঁড়িয়ে গেলে, এতেই হয়তো শেষ পর্যন্ত সব অত্যাচার নির্যাতনের অবসান হতো। একজন বিশ্বাসীর সত্য বলার কারণে। কত সময় আমরা খারাপ কিছু দেখলেও কিছু বলি না, আমি হয়তো চাকরি হারাবো; আমার কিছু বলা উচিত না। এই লোকটি প্রতিকূল পরিস্থিতির মোকাবেলায় দাঁড়িয়ে গেল। আমরা কিসের ভয় করি? চাকরি হারানোর ভয়? অথবা আমার বন্ধু মন খারাপ করবে? অথবা লোকে কী বলবে?

কেউ আপনাকে খুন করছে না, কেউ আপনার সন্তানকে হত্যা করছে না, তারপরেও আমি আপনি মেরুদণ্ডহীন যখন সত্যের জন্য দাঁড়ানোর সময় আসে। আমাদের অবস্থান কোথায়? আমরা কোথায় দাঁড়িয়ে আছি? মুসলমানদের মর্যাদা কোথায়? আমরা ভুল কিছু দেখলেও এর বিরুদ্ধে কথা বলি না। আমরা কোন বিষয়টাকে আমরা ভয় করি আর কোন বিষয়টাকে আমরা ভয় করি না!

— উস্তাদ নোমান আলী খান

[ আয়াতগুলোর অর্থ – “যখন তারা জাহান্নামে পরস্পর বিতর্ক করবে, অতঃপর দূর্বলরা অহংকারীদেরকে বলবে, আমরা তোমাদের অনুসারী ছিলাম। অতএব তোমরা কি আমাদের থেকে আগুনের কিয়দংশ বহন করবে’? অহংকারীরা বলবে, আমরা সবাই তো জাহান্নামে আছি। আল্লাহ তাঁর বান্দাদের ফয়সালা করে দিয়েছেন।” সূরা গাফির আয়াত ৪৭-৪৮]

(Visited 65 times, 1 visits today)

মতামত

comments