আপনি যখন কুরআন পড়বেন

“আপনি যখন কুরআন পড়বেন দেখবেন যে এটা শুধু নিয়ম নীতির বই নয়, এটা শুধু এমন নয় যে এটা কর, যদি এটা না কর তাহলে এটা হবে, অথবা ওটা হবে। আসলে কুরআনে অল্প কিছু নিয়ম-কানুন আছে, অধিকাংশ অংশ জুড়েই আছে এমন একটি সম্পর্কের কথা যাতে আছে বিশ্বস্ততা, কৃতজ্ঞতা, ভালবাসা, বন্ধুত্ব, স্মরণ করানো, চাওয়া, আসলেই এটি একটি অসাধারণ সম্পর্ক। এই রব আমাকে এমন একজন আবদ হিসাবে চান, যে তাকে ভালবাসবে, যে তাকে বন্ধু ভাববে, সব সময় তাঁর সাথে কথা বলবে, তাঁর কথা স্মরণ করবে। উনি বলছেন ‘فَاذْكُرُونِي أَذْكُرْكُمْ’ ‘ আমাকে স্মরণ কর আমিও তোমাকে স্মরণ করবো’।

এভাবে কে কথা বলতে পারে? মনে হচ্ছে না যে একজন রব কথা বলছেন? তাই না? অর্থাৎ রব হিসাবে আল্লাহ নিজেকে কুরআনে যেভাবে চেনাচ্ছেন সেটা আপনার ধারনাটাকেই ভেঙ্গে দিচ্ছে। উনি চান আপনার বন্ধু হতে এবং চান আপনিও উনার বন্ধু হবেন। কিন্তু প্রথমেই বুঝতে হবে উনি আপনার ‘রব’, তারপরে ভাবতে হবে যে উনি আপনার বন্ধু। তিনি আপনাকে উপহার দিতে চান, কিন্তু উনি উপহার দেবার পূর্বে চান যে আপনি এটা বুঝুন উনি আপনার রব, এবং আপনি তাঁর বান্দা। তিনি চান আপনাকে দিতে, তিনি আপানকে তাঁর ভালবাসা দেখাতে চান, তিনি আপনাকে তাঁর দয়া দেখাতে চান, তাঁর ক্ষমা দেখাতে চান, আপনাকে এসব কিছু দিতে চান, তিনি আপনাকে সঠিক পথ দেখাতে চান, তিনি আপনাকে প্রজ্ঞা দিতে চান, তিনি আপনাকে জ্ঞান দিতে চান, তিনি আপনাকে শেখাতে চান, চান আপনার শিক্ষক হতে। এই যে আপনার সাথে এত সম্পর্ক এটা শুধু একটা সম্পর্ক নয়, অনেকগুলো। আর এই সব কিছুর উপরে তিনি ‘রব’, আপনি তার বান্দা। এর অর্থ হল এই সম্পর্কে যাই ঘটুক না আপনার বিনম্রতা, আনুগত্য কখনই কমতে পারবে না। কারণ দাসের ধারনাটাই তো এরকম; অন্য যেকোন কাজের চেয়ে সবচেয়ে বেশি আনুগত্য দাস ব্যাপারটির মাঝে নিহিত। এর চেয়ে অনুগত আর কিছু হতে পারে না, এর নীচে আর কিছু হতে পারে না।”

(Visited 111 times, 1 visits today)

মতামত

comments